নোয়াখালীতে দুই কলেজ ছাত্রীর অনলাইন প্রতারণার ফাঁদে নিঃস্ব প্রবাসীরা: আটক ৩

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি :: অনলাইনে নোয়াখালী সরকারি মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ২ কলেজ ছাত্রীর যৌনতার ফাঁদে পড়ে নোয়াখালীর বিভিন্ন উপজেলার অনেক মধ্যপাচ্য প্রবাসী সর্বস্বান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এমন একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে নোয়াখালী জেলা সিআইডি পুলিশ ২ কলেজ ছাত্রীসহ তাদের সহযোগি বিকাশ এজেন্টের এক দোকানদারকে আটক করে।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার কুয়েত প্রবাসী সাইফুল ইসলাম’র অভিযোগের ভিত্তিতে জেলা সিআইড পুলিশ কার্যালয়ে অভিযুক্ত ২ কলেজ ছাত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের পর অভিযোগের সত্যতা পেয়ে তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়।

পরে ভুক্তভোগী সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৪০৬ ও ৪২০ ধারায় প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে সুধারাম থানায় মামলা দায়ের করেন।
গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, বেগমগঞ্জ উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের খাঁনপুর প্রামের জিল্লুর রহমান’র মেয়ে মারজাহান আক্তার (১৯), সেনবাগ উপজেলার কেশারপাড় ইউনিয়নের লেদুয়া গ্রামের গোলাম মাওলার মেয়ে শাহজাদী মজুমদার (২০), নোয়াখালী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের জয়কৃঞ্চপুর গ্রামের হোসেন আহমদ’র ছেলে বিকাশ এজেন্ট দোকানদার মোশারফ হোসেন মনু। অভিযুক্তদের আটকের পর তাদের ব্যবহৃত বিকাশ একাউন্টে বিপুল পরিমাণ টাকা লেনদেনের প্রমাণ পাওয়া সিআইডি।

জানা যায়, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার কুয়েত প্রবাসী সাইফুল ইসলামকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রূপের জালে ফেলে কয়েক দফায় সাড়ে ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় এই দুই রূপসী। এছাড়াও কোম্পানীগঞ্জের মধ্যপাচ্য প্রবাসী তানভির হোসেন, মোস্তফা চৌধুরী নামে দুই প্রবাসী যুবকের থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় এ নারী চক্র। এ ছাড়াও কোম্পানীগঞ্জের বেশ কয়েকজন যুবক এদের জালে ফেঁসেছেন বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করে।

নোয়াাখালী জেলা সিআইডি পুলিশের উপ-পরিদর্শক শাহ আলম মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগ রয়েছে নোয়াখালীতে একাধিক সক্রিয় নারী চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, ইমো, হোয়াটসআপ, মেসেঞ্জারে ইউরোপ প্রবাসীর কন্যা সেজে মধ্যপাচ্য প্রবাসী যুবকদের বিয়ে করে ইউরোপে নেওয়ার প্রলোভনে ফেলে প্রতারণা করে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয়। আবার প্রথমে বন্ধুত্বের সম্পর্ক ফেবে ফেইসবুক, ইমো, হোয়াটসআপ, মাস্যেঞ্জারে ফোন সেক্স করে তা কৌশলে ধারন করে নেয় পরে এসব ছবি, ভিডিও অনলাইনে ফাঁস করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে হুমকি- ধামকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।

এছাড়াও গরীব অসহায় লোককে ক্যান্সারসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্তের কথা বলে মানবিক আবেদন দেখিয়ে, অসুস্থ রোগীদের বানোয়াট ছবি দেখিয়ে সাহায্যের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়। এ জন্য তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক গুলো আইডি ব্যবহার করে। টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পর তারা আইডি গুলো পুরোপুরি নষ্ট করে দেয়।

এদিকে বাহরাইন প্রবাসী কবির হোসেন প্রবাস থেকে ফোনে গণমাধ্যম কর্মিদের জানায়, গরীব অসুস্থ লোককে সাহায্যের কথা বলে তার কাছ থেকে ৮হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। সম্প্রতি ইমুতে তাকে ব্ল্যাকমেইল করে তার কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করে।


শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.