রিভিউ খারিজ, মওদুদ আহমদকে বাড়ি ছাড়তে হবে বললেন অ্যাটর্নি জেনারেল

0
52
https://www.noakhalitimes.com

নিউজ ডেস্ক :: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ গুলশানের যে বাড়িতে বাস করে আসছেন, সেই বাড়ির বিষয়ে সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা চেয়ে করা আবেদন (রিভিউ) পর্যবেক্ষণসহ খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আজ রোববার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদেশের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেছেন, বাড়ি অবশ্যই ছাড়তে হবে। বাড়িটা বর্তমানে নিয়ে নেওয়া সরকারের দায়িত্ব।

অন্যদিকে মওদুদ আহমদ সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘এখানে তো সরকারকে স্বত্ব দেওয়া হয়নি। অধিকার দেওয়া হয়নি। আমরা মূল মালিকের সঙ্গে বোঝাপড়া করব, উনার ছেলে আছে। আদালতও কিছু পর্যবেক্ষণ দেবেন।’ এক প্রশ্নের জবাবে মওদুদ বলেন, ‘দেশে কি আইন নেই? আমি আইনের আশ্রয় নেব। আদালতের আশ্রয় নেব, বাড়ি ছাড়ব না।’

আইনজীবী সূত্র বলেছে, গুলশান-২ নম্বর সেকশনের ১৫৯ নম্বর প্লটের ওই বাড়ি মওদুদের ভাই মনজুর আহমদের নামে ডিক্রি জারি ও মিউটেশন (নামজারি) করতে হাইকোর্ট রায় দিয়েছিলেন। গত বছরের ২ আগস্ট আপিল বিভাগে এই রায় বাতিল হয়ে যায়। রাজউক ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল মঞ্জুর করে এ রায় দেওয়া হয়। আপিল বিভাগের ওই রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে মনজুর আহমদ আবেদনটি করেন, যা আজ পর্যবেক্ষণসহ খারিজ হয়।

ওই বাড়িটি অবৈধভাবে দখল ও আত্মসাতের অভিযোগে মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে দুদকের করা মামলা বাতিলের রায়ও বহাল রয়েছে। সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে দুদকের করা আবেদন (রিভিউ) আজ খারিজ করেছেন আপিল বিভাগের একই বেঞ্চ।

আইনজীবী সূত্র বলেছে, ২০১৩ সালের ১৭ ডিসেম্বর গুলশান থানায় মওদুদ আহমদ ও তাঁর ভাই মনজুর আহমদের বিরুদ্ধে মামলাটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ মামলায় অভিযোগ আমলে নেওয়ার আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করেন মওদুদ, যা খারিজ হয়। এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন মওদুদ আহমদ, যা নিষ্পত্তি করে ২ আগস্ট রায় দেন আপিল বিভাগ। এই রায়ের পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করে দুদক, শুনানি শেষে আজ তা খারিজ হয়।

আদালতে মনজুর আহমদের পক্ষে মওদুদ আহমদ নিজে ছাড়াও শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও আবদুল্লাহ আল মাহমুদ। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী আবদুল মতিন খসরু ও খুরশীদ আলম খান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে