কোম্পানীগঞ্জে সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয় না!

0
129
https://www.noakhalitimes.com

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি :: সরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক। সরকারি প্রতিষ্ঠানে সকল কার্যদিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনে নিয়ম থাকলেও বাস্তবতা ভিন্ন। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সরকারি কর্মদিবস গুলোতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় না। স্থানীয় নির্ভর যোগ্য সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ ১ বছর যাবত সরকারি এ প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হচ্ছেনা।

বিজয়ের মাসের ৭ ডিসেম্বর নোয়াখালী মুক্ত দিবস । এই দিনে সাব রেজিষ্ট্রি অফিস প্রাঙ্গণে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায় (৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ২০মিনিট) জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। সরকারি এ অফিসে বিজয়ের মাসেও জাতীয় পতাকার ষ্ট্যান্ডটি খালি রয়েছে। পতাকা স্ট্যান্ডের মধ্যে রশি বাঁধা থাকলেও উড়তে দেখা যায়নি পতাকা।

সাব রেজিষ্ট্রার মো.শাহ আলম জানান, আমি থাকলে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। আমি না থাকলে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়না। কিন্তু আজ আপনার উপস্থিতিতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি, প্রতিবেদক এমন প্রশ্ন করলে তিনি কোন সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেনি।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল’র দৃষ্টি আকর্ষন করলে, একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন জাতীয় পতাকা উত্তোলন হচ্ছেনা এটি কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায়না। এ প্রতিবেদককে তিনি এ বিষয়ে তড়িৎ পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খাঁন এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান,সরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা দীর্ঘদিন উত্তোলন করা না হলে,উত্তোলন করার জন্য তাদের কে বাধ্য করা হবে। আমরা এ বিষয়টি নিয়ে দলীয় ফোরামে আলোচনা করবো।

বিষয়টি নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার জহিরুল হকের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলেও এরা স্বাধীনতা বিরোধী এবং স্বাধীনতা বিরোধীদের দোসর। সরকারি কর্মকর্তা সরকারি অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন না করার অর্থ হল সে একটা ভূখন্ড স্বীকার করেনা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে